Header Border

ঢাকা, সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)

রঙিন ফুলকপি চাষ করে আব্দুল আলিমের সফলতা

প্রথমবারের মত পরীক্ষা মূলক ভাবে রঙিন হলুদ-বেগুনি ফুলকপি চাষ করে সফলতা পেয়েছেন কৃষক মো. আব্দুল আলিম। শুধু হলুদ-বেগুনি ফুলকপি নয়। তার জমিতে রয়েছে রঙিন বাঁধাকপি, বিষমুক্ত ক্যাপসিকাম, বারি-১২ জাতের রঙিন বেগুনও। অধিক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ হওয়ায় বাজারে এসব সবজির দামও বেশি।

কৃষক আব্দুল আলিমের বাড়ি নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার মশিন্দা ইউনিয়নের বিলকাঠোর গ্রামে। সেখানেই মাত্র ১০ কাঠা জমিতে রঙিন হলুদ-বেগুনি ফুলকপি চাষ করেন। ২০ হাজার টাকা ব্যয়ে এসব সবজি চাষ করে প্রায় এক লাখ ৫০ হাজার টাকার ফসল উৎপাদন হয়েছে আব্দুল আলিমের। তার বিচিত্র এই সবজি ক্ষেত এলাকায় সাফল্যে সাড়া পড়েছে। এলাকার অনেক কৃষক নতুন আঙ্গিকে এই সবজি চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

জানা গেছে, চারা রোপণ থেকে উত্তোলন পর্যন্ত পরিচর্যা, জৈবসারসহ মোট খরচ হয়েছিল মাত্র ২০ হাজার টাকা। চারা রোপণের দুই মাস পর অর্থাৎ ৬০ থেকে ৬৫ দিনের মধ্যে জমি থেকে ফসল উত্তোলন করে বাজারে বিক্রি করে খরচ বাদে তার লাভ হয়েছে প্রায় এক লাখ ৪০ হাজার টাকার মত। প্রথম বারেই কৃষক আব্দুল আলিমের এমন সফলতা দেখে এখন উৎসাহ পাচ্ছেন এলাকার অন্য কৃষকেরা। এদিকে স্থানীয় বাজারে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে এই রঙিন ফুলকপি। পাশাপাশি বাজারেও সাদা ফুল কপির চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে এই রঙিন ফুলকপি, অনেকেই কৌতূহল বশত: কিনছেন এই সবজি। সবজি বিক্রেতা থেকে শুরু করে পাইকারি বিক্রেতারাও হন্যে হয়ে খুঁজছেন এই রঙিন ফুলকপি। ফলে এই ফুলকপি চাষাবাদ নিয়ে এখন রঙিন স্বপ্ন দেখছেন স্থানীয় কৃষকেরা।

 

স্থানীয় কৃষি বিভাগ কৃষিতে ভিন্নতা আনতে নানা ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে। তারমধ্যে কৃষক আব্দুল আলিমের সবজি ক্ষেত অন্যতম। কৃষি বিভাগ বলছে, স্বল্প ব্যয়ে বিষমুক্ত উচ্চ ফলনশীল জাতের সবজি চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে কৃষক আব্দুল আলিমের খেতে পরীক্ষামূলক নানা জাতের সবজি চাষ করা হয়েছে। গুরুদাসপুর উপজেলায় এবারই প্রথম পলিনেটের মাধ্যমে বারি-১২ জাতের বেগুন, দুই জাতের রঙিন ফুলকপি, বেগুনি রঙের বাঁধাকপি, উন্নত জাতের মুলা এবং উচ্চ ফলনশীল ক্যাপসিকামের ২ হাজার ২০০ বীজ বপন করেছিলেন কৃষক আব্দুল আলিম। এরপর চারা গজালে প্রক্রিয়ামতো রোপণ করেন। এতে ফলও পেয়েছেন ভালো। ভিটামিন এ, সি, ক্যারোটিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে এসব সবজিতে।

কৃষক আব্দুল আলিম জানান, নাটোর জেলার মধ্যে তার জমিতেই এই প্রথম রঙিন বিষমুক্ত সবজি চাষ করা হয়েছে। বাজারের সাধারণ টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, ক্যাপসিকামের দাম বেশি। তিনি বলেন, চারা রোপণের পর থেকে পরবর্তী ৬০ থেকে ৬৫ দিনের মধ্যেই এসব সবজি বিপণন যোগ্য হয়েছে। তার খেতের রঙিন ফুলকপি এবং বাঁধাকপি এবার আকার ভেদে ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরে খুচরা বিক্রি করেছেন।

গুরুদাসপুর পৌর শহরের চাঁচকৈড় বাজারে সবজি বিক্রেতা মোঃ টুটুল প্রামানিক ও মোঃ এয়ারুল হোসেন বলেন, রঙিন ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন আসায় সাধারণ সবজির চাহিদা কমেছে। দাম বেশি হলেও রঙিন সবজি কিনছেন মানুষ। এ কারণে আব্দুল আলিমের জমিতে গিয়ে তারা এসব সবজি পাইকারি দরে ক্রয় করে বাজারে আনছেন।

গুরুদাসপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হারুনুর রশীদ জানান, রঙিন এসব সবজি চাষে জৈব সারের ব্যবহার হচ্ছে। এ কারণে ক্ষতিকারক রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমছে। তাছাড়া রঙিন ফুলকপিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে। রঙিন এসব সবজিতে ২৫ গুণ বেশি ভিটামিন থাকে। পুষ্টিগুণ আর ভিন্ন রঙের কারণে স্থানীয় বাজারে এর প্রচুর চাহিদাও রয়েছে।

 

প্রিয় পোষ্ট সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন


আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন
একটিও জাল ভোট পড়লে কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হবে: ইসি হাবিব
আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যেতে বসেছে পিড়িঁতে বসে চুল কাঁটা
দিনে এক কেজি মরিচ খান নদীয়ার শেখর সিকদার
শাহরাস্তিতে পায়ুপথ থেকে বের করা হল ডাব!
অক্টোবরে চালু হচ্ছে শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল
জনগণের ওপর প্রতিশোধ নিতেই সরকার বিদ্যুৎ ও জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি করতে চাচ্ছে : রিজভী

অন্যান্য এর আরও খবর

উপদেষ্টা মন্ডলীর সভাপতি: ড. মোয়াজ্জেম হোসেন, সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: এ্যাড. মো. হেলাল উদ্দিন, সম্পাদক: অধ্যাপক মো. শাহাদাত হোসেন, নির্বাহী সম্পাদক: মো. ওমর ফারুক দর্জি, প্রকাশক: আবু সাঈদ ইকবাল মাসুদ সোহেল কতৃক সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল লন্ডন থেকে প্রকাশিত
বাংলাদেশ অফিস: (অস্থায়ী) শহীদ ভিলা, বাসা- ২৫, কাঠালবাগান, গ্রীণরোড, ঢাকা-১২০৫